আপনার অ্যালার্জির উৎস কিন্তু এগুলোই!

হাঁচি–কাশি সারছেই না, শ্বাসকষ্ট, অল্পতেই খুক খুক করা, ত্বকে চুলকানি, র‌্যাশ—অ্যালার্জির সমস্যা কখনো কখনো খুবই কষ্ট দেয়। অ্যালার্জির সমস্যা এড়াতে একটি বড় সমাধান হলো, যে বস্তুতে অ্যালার্জি হয় বা অ্যালার্জেনগুলো এড়িয়ে চলা। অ্যালার্জি কিছুতেই যখন সারছে না, তখন একটু ভাবুন, আশপাশেই কি লুকিয়ে আছে আপনার শত্রু?

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন ময়মনসিংহের কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজের কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ। আসুন তাঁর বর্ণনায় জেনে নেই অ্যালার্জির জন্য দায়ী আপনার শত্রুদের সম্পর্কে।

১. বিছানাপত্র

বিছানার চাদর, বালিশের কভার, বালিশ, লেপ, তোশক, মেট্রেস, কাঁথা-কম্বল—এগুলোতে থাকে ধুলাবালি ও ডাস্ট মাইট (এক জাতের খুব ছোট পোকা)। বিছানার ধুলাবালি আর ডাস্ট মাইট থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার বিছানার চাদর, বালিশের কভার, লেপের কভার ধুয়ে দিতে হবে। মাঝেমধ্যে লেপ, কাঁথা, কম্বল রোদে দিতে হবে। তোশক, মেট্রেসও রোদে দেওয়া উচিত। রোদের অতিবেগুনি রশ্মিতে ডাস্ট মাইট দূর হয়।

২. আসবাব

চেয়ার, টেবিল, সোফা, খাট, আলমারি, ওয়ার্ডরোব ইত্যাদির ওপরে ও ফাঁকে ফাঁকে ধুলাবালি ও ডাস্ট মাইট থাকে। আর্দ্র জায়গা হলে ছত্রাকও জন্মায়। এগুলো প্রতিদিনই ঝাড়া–মোছা করতে হবে। বদ্ধ বা ভ্যাপসা ঘর হলে মাঝেমধ্যে এগুলো বাইরে বা ছাদে রোদে দেওয়া ভালো।

৩. কার্পেট, ম্যাট

ঘরের মেঝেতে বিছানো কার্পেট ও ম্যাট প্রচুর ধুলা ও ডাস্ট মাইট জমা হওয়ার উৎকৃষ্ট স্থান। নিয়মিত ভ্যাকুয়াম ক্লিনার দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। যাদের অ্যালার্জি আছে, তাদের বাড়িতে বরং কার্পেট না থাকাই ভালো। মেঝেতে কার্পেট বা ম্যাটা না থাকলে প্রতিদিনই ঘর ঝাড়ু দিয়ে ঘরের মেঝে ভেজা কাপড় দিয়ে মুছে দিতে হবে।

৪. দরজা–জানালা

দরজা, জানালা ও দরজা-জানালার পর্দায় জমে থাকে ধুলাবালি, মাকড়সার জাল, ডাস্ট মাইট নিয়মিত ঝেড়ে, মুছে, ধুয়ে পরিষ্কার রাখতে হবে।

৫. রান্নাঘর

আর্দ্র রান্নাঘরে বাসা বাঁধতে পারে ছত্রাক। কাজ শেষে রান্নাঘর ঝেড়ে মুছে পরিষ্কার করে শুকনো রাখতে হবে। রান্নাঘরের ধোঁয়া বাইরে বের করে দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। যথেষ্ট আলো–বাতাস থাকা চাই রান্নাঘরে।

৬. বই–পুস্তক

টেবিলে, বইয়ের তাকে বা আলমারিতে রাখা বই দীর্ঘদিন নাড়াচাড়া না করলে এগুলোতে ধুলা জমে, ডাস্ট মাইট বাসা বাঁধে। বই যত্ন করে শুধু তুলে না রেখে নিয়মিত নাড়াচাড়া করতে হবে, পড়তে হবে। তাহলে পরিষ্কার থাকবে।

৭. শিশুর খেলনা

শিশুর নরম খেলনা, যেগুলোর ওপরে কাপড়ের আবরণ বা প্রাণীর লোমের মতো থাকে, সেগুলোতে ধুলা ও ডাস্ট মাইট জমে থাকে। ধোয়া যায়, এমন খেলনাগুলো পানি দিয়ে ধুয়ে দিতে হবে। অন্যগুলো ভ্যাকুয়াম ক্লিনার দিয়ে পরিষ্কার করে দিতে হবে।

৮. পোষা প্রাণী

বিড়াল, কুকুর, খরগোশ ইত্যাদি প্রাণীর লোম থেকে অ্যালার্জি হয়। পাখি বা প্রাণীর মলমূত্রও হতে পারে অ্যালার্জির কারণ। পশুপাখি পুষলে তাকে নিয়মিত গোসল করানো, তার থাকার জায়গা নিয়মিত পরিষ্কার করা ও মলমূত্র সঙ্গে সঙ্গে পরিষ্কার করা উচিত।

Post Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *