পুরুষদের জামার বোতাম ডান দিকে আর মহিলাদের বাঁ দিকে থাকে কেন জানেন?

এখন কার আধুনিক সমাজে পুরুষ ও মহিলা উভয়েই একে অপরের পরিপূরক। এখনকার মহিলারাও শাড়ির গন্ডি থেকে বেড়িয়ে পরিধান হিসেবে জামাকেও বেছে নিয়েছে। কিন্তু কোন সময় কি লক্ষ্য করেছেন যে পুরুষদের জামার বোতাম ডান দিকে ও মহিলাদের জামার বোতাম বাঁ দিকে থাকে?আপনাদের মধ্যে হয়তো অনেকেই তা লক্ষ্য করেন নি। জামার বোতমের এই দিক নিয়ে এক এক জনের এক এক রকম মত রয়েছে। একদল ঐতিহাসিকদের মতে জামার বোতামের প্রচলন শুরু হয় সিন্ধু সভ্যতার যুগে। সেই সময় ঝিনুকের খোল দিয়ে বোতাম বানানো হত। এরপর ত্রয়োদশ শতকে জার্মানিতে ছিদ্রযুক্ত বোতামের ব্যবহার শুরু হয়। এতো গেল ইতিহাসের কথা, এখন জানা যাক্ এর সম্পর্কে কয়েকটি মতামত।

• ত্রয়োদশ শতকের মাঝামাঝি সময় থেকে জামাতে বোতামের প্রচলন শুরু হয়। সেই সময় শুধুমাত্র ধনী ব্যক্তিদের জামাতেই বোতাম থাকত। পুরুষরা নিজেরাই জামা পড়তেন তাই তাদের সুবিধার্থে জামার ডান দিকে বোতাম লাগানো হত। কিন্তু মহিলাদের জামা পড়ানোর জন্য দাসী থাকত, তারা তাদের জামা পড়ানোর সুবিধার জন্য মহিলাদের জামার বোতাম বাঁ দিকে লাগানো শুরু হয় বলে দাবি একদল বিশেষঞ্জের।

• একদল ঐতিহাসিকদের মতে নেপোলিয়নের নির্দেশেই নাকি এই প্রথা শুরু হয়। তাদের মতে নেপোলিয়ন নাকি তাঁর একটি হাত সব সময় বুকের কাছে শার্টের ভেতরে ঢুকিয়ে রাখতেন আর মহিলার তার এই অভ্যাসটিকে নিয়ে ব্যঙ্গ করত। তাই নেপোলিয়ান মহিলাদের জামার বোতাম উল্টোদিকে লাগানোর জন্য নির্দেশ দেন।

• তাছাড়াও অনেকে মনে করেন যে বেশির ভাগ মানুষই ডান হাতি। গোটা বিশ্বে বোতাম লাগানো জামা পুরুষরাই বেশি পড়েন তাই পুরুষদের সুবিধার্থে জামার বোতাম ডান দিকে লাগানো হয়। আবার অন্যদিকে শিশু কে স্তন্যপান করানোর জন্য মহিলারা তাদের ডান হাত মুক্ত রাখেন। তাই মহিলাদের সুবিধার্থে তাদের জামার বোতাম বাঁ দিকে লাগানো হয়।

Post Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *